Wednesday, December 2, 2020

Top Five Offbeat Picnic Spots Near Kolkata

 



With the onset of winter now its time to go and enjoy for a day out or picnic with family and friends.But due to pandemic its better to visit some offbeat spots where you can avoid huge crowds and also be with nature.Where you can take a break from city life and search for freshness.So below mentioned are five offbeat picnic spots.These are very near to Kolkata around 100-150kms away and are great places to hang out.

                                           5 Offbeat Picnic Spots Near Kolkata

1)Joyland-Hidden in just 30 kms from Kolkata on Diamond Harbour road lies this beautiful place ideal for enjoying day out and picnic with groups.Its a beautiful properly arrenged picnic spot where there are huge parks full of greeneries.You can spend the whole day enjoying nature and children can enjoy different rides.

Reach Kiparampur via Aamtala on Diamond Harbour road.

Booking no-6290342235

2)Kulti-A beautiful offbeat place very near to Kolkata for spending a day for picnic and photography.Situated 40 kms through Basanti Highway.8kms from Ghatakpukur towards Malancha take left turn and you will reach Kulti.It is a place full of canals and log gates.Its a very calm and quiet place to have peace of mind.The deep blue waters and greeneries makes a beautiful combination which really will attract you.

3)Abasar-Its an offbeat picnic spot in South 24 parganas.You can have everything there to enjoy yourself.Reach Sirakol more via Aamtala.From Sirakol more,reach Sherpur more.From there travel to Nilkuthi,Chalkaipour.

Booking no-9831034095/9830242486(Somnath Da)

4)Bali Bagicha-This marvellous vast expanse of land with beautiful gardens and trees is ideal for picnic with groups.Its a booming spot for tourists to visit.There are beautiful decorated gardens full of colourful flowers,children's park Lots of benches are there to sit and spend the day in the midst of nature.
From Dunlop go through Dakshineswar Bali bridge and reach Balikhal stop.After then reach Bali Bagicha through Jethiya road.

Booking no-90875350515

5)Gopalpur Lock gate-It is situated in Mogra region in Hoogly.In 1958 with Chunchura sub-division and with the help of DVC this log gate had been constructed over river Kunti.Surrounding the lock gate is full of greeneries which will force you to spend the whole day here.Beautiful place with birds chirping and the rumbling of Kunti river makes this place wonderful spot to visit.
From GT road take Delhi road,then reach Mogra.After reaching Mogra you have to travel to Naksha,then Naksha to Digsui.From Digsui lock gate is only 2.5km.

Conclusion-I hope these places five offbeat picnic spots near kolkata will help you to visit the places and spend the whole day in the midst of nature.

Monday, November 9, 2020

Bortir Bill-The Perfect Destination For Refreshing Your Mind

 


Last sunday I had visited an offbeat destination which is very near to our hometown.Its just 1.5-2 hours of journey from Kolkata.Its on Barasat-Barakpur road.The original name of Bortir Bill is 32(Bortirisher)Bill.Its been told that there are 32 villages whose water are being stored in these waterbodies.Its a good ideal place to be with nature,to fill up the fresh air in your soul and body,to see the villagers ploughing and fishing.


  1.    I and my husband and daughter just was searching where to chill our in this Covid time.Because we cant travel very far but we were not also in a mood to stay at home on Sundays.So  by taking the help of Google  we finally found this place.And the place is such worthy to visit.







After travelling on Barasat-Barakpur road which will head towards Neelganj bazaar.There is a medical shop called Uma Medical Hall.We took the opposite lane and went straight towards Beraberia and then took the lane just beside Das Enterprise.So we just took the narrow village lane and reached there.There are paddy fields all around,a small jungle where you can just stop and take a look to the huge fields where different kinds of vegetables are growing and tractors are ploughing the fields.
 Everywhere there is freshness all around and you can only hear the sound of birds and the murmuring of leaves.I was really stunned that this kind of a village really is present at so much near our hometown.








Huge group of people gather on winter months for picnic but I will say that it will be perfect if one visit at the time of monsoon.Because at that time the waterbodies are filled with water and boats are there where you can sit and feel the nature around and also the boatman will take you near the an area where you can find numerous Shaluk flower blooming in the water.It is so beautiful.But as we visited in November,we could not ride the boat as the water is very less.But all total the place is marvellous.One must visit at least once to rejuvenate his/her mind.



Conclusion-Finally,I just want to tell you to visit Bortir Bill to enjoy nature if you really a nature love and also to experience village life.The perfect destination for refreshing your mind.





Thursday, September 10, 2020

Themes of Durga Pujo 2020

 


Hi Friends,

Durga Pujo 2020 is coming.Just less than two months left for Bengali's greatest festival.But this year 2020,seemed to be an ill fated year due to the pandemic Covid 19.the human life cycle had been changed.This year Durga Pujo will also be celebrated in a very low esteem.We will have a lot of restricytion in case of pandel hopping.Moreover the pujo comittees have also a lot of restricytion to organise the puja.Many of the clubs will not be having the huge idol or huge pandel.The crowd will also be very much lesser than every year.

But some of the clubs will be having Durga Pujo in a smaller way just to celebrate the coming of Ma durga so that the goddess gives us strength to fight with every odd situation,to help us to give courage.
So I am here mentioning some of the durga pujo themes of 2020 and if you somehow go for pandel hopping you should visit these pandels definitely.




1)Sreebhumi Sporting Club Durga Pujo-Situated in Laketown,Kolkata this pujo is one of the most popular pujo pandels of Kolkata.Every year huge crowd gather in this pandel to see the beautiful idol and pandel.Every year they organise different unique themes to attract the Ma Durga fans.This year also they thought of something unique.The club is making Kedarnath as theme of the pandel.Kedarnath is situated in Uttarakhand near Mandakini river.There is a temple dedicated to Lord Shiva.

2)Badamtala,66Pally and Nepal Bhattacharya Street Pujo-The three Durga pujo are situated in South Kolkata.These are also most popular Duga Pujos in Kolkata.These three pandels are situated in Kalighat area.Three of the clubs are situated 1 km distance.They have the themes giving respect to the famous film director,music director,scriptwriter,the most talented Satyajit Ray.The three of these pandels have their themes on Apu Triology.Badamtala is celebrating the theme Pather Panchali,66 Pally is doing Aparajita and Nepal Bhattacharya Street Pujo is doing Apur Sansar.

3)Chetla Agrani Club-Chetla Agrani Club is situated in Chetla,Alipore.It is also a famous pujo in South Kolkata.The ground where the pujo takes place was previously known as Imperial 


Ground.This year this club is coming up with an unique theme.This year's theme is Rabindranth Tagore's famous poem "Dushomoi"They choose this theme to give us a message that soon this pandemic situation will be over and we will fight with this situation.Ma Durga will give us courage and patience to fight.



There are also many big clubs like Santosh Mita Square,Evergreen Durga Pujo,Singi Park,Dum Dum Tarun Sangha and many more their theme still not disclosed as yet.They will organise pujo but not that huge as their budget have been decreased less than half.

Conclusion-So,if you want to go out in this year to enjoy the festival do visit the above mention clubs.



Friday, July 24, 2020

Some Offbeat Places of North Bengal




North Bengal,a place where every year thousands of tourists visit to enjoy the exquisite nature of hill town,the snow-capped mountains,the silence of the valleys,the sound of meandering rivers.It is very near to Kolkata and we the Kolkatans are always eager to visit different places of North Bengal whenever we get a chance.But most of the people visit popular places of North Bengal like Darjeeling,Kalimpong,Karseong,Lava,Lolygaon and many more.But if you  want to explore North Bengal then you have to visit some unexplored spots where you can discover many new people,spend some quality time with yourself and also to get rid of the busy life.
                                   
So I am mentioning five unexplored places of North Bengal where you must visit in your next trip.

1)Doban Valley-If you want to spend a couple of days just talking with nature and giving time to yourself then Doban Valley is a must worth visit.If you plan to visit silk route then you can very well stay a couple of days in Doban Valley.It is a place where Reshi and Rangpo rivers meet.Surrounded by dense forests and grasslands,you will simply fall asleep to the sound of meandering waters along with the sweet chirping of birds.Silence prevails there so much that you can feel the sound of your heartbeat.
Doban meaning two.Do meaning two and Ban meaning a place.So its name is Doban.Its  the sub division of Kalimpong but to reach this valley,you have to come from Rorathang side of East Sikkim.

Accomodation-1)Kanan Valley Homestay(9932386689,7076594114).

2)Ahaldara- Ahaldara is a beauty of  Shelpu Hills in Kursheong District. It is a small hilltop which is located 5 km from Latpanchar.It is the beautiful serene place where you will find a 360 degree view of Kanchenjungha.From NJP,Ahaldara is just 40 km.This place is famous for sunrise and sunset view.From the hilltop the view is marvellous.It is one of the unexplored places of North Bengal.Ahaldara is 4500 feet from sea level.Ahaldara can be reached through Latpanchar.From Kalijhora,there is an uphill drive which leads to Latpanchar.From there,you can trek and reach Ahaldara.

Accomodation-Gurung Homestay
                         Mr.Padam Gurung(09875959974,09064134198).Tents and campfire can be arrenged with separate costing.

3)Rangaroon-Rangaroon is a small hamlet surrounded by tea gardens which is 6000 feet above sea level and is only 16 km from Darjeeling.It is considered as one of the offbeat places of North Bengal.
Those who like solitude and want to spend time with themselves they will surely like this place.From Rangaroon,one can visit the beautiful Rangaroon Tea Garden,observatory cave,the Rungdung River,Darjeeling,Ghum Monastry,Batasia Loop etc. and adjoining Senchal Wildlife Sanctuary.This place is a part of 38 square km stretched Senchal Wildlife Sanctuary.It is termed as tobacco free zone and very neat and clean.
                If you want to visit Rangaroon,first you have to reach Jorebunglow and then take the road to Lamhatta.

Accomodation-There are only two homestays in Rangaroon.

1)Lakpa Homestay-(09733071716,09733069690)

2)Rangaroon Homestay(09832667570,09800177852)

4)Chataidhura-Its a newly found offbeat destination just 18 km from Darjeeling.Its more than 6000 feet above sea level.Its a pristine village surrounded by snow capped himalayan peaks and dense coniferous forest.You can visit some of the spots from Chataidhura like there is a very beautiful Shiv Mandir of Chataidhura dedicated solely to Lord Shiva.,Hawaghar View point which is build to get a stunning panoramic view of Kanchenjunga and surrounding scenery.However you can also visit the places which are near to Darjeeling.There are a number of darjeeling bound shared jeeps from NJP or Bagdogra which will take you to this serene place.

Accomodation-There are quite a number of homestays.Best is Chataidhura home stay.next is Lopchan Homestay.

Lopchan Homestay-08918681229


5)Ghaleytar-Ghayaltar is situated in Upper Sittong.It is an unexplored beautiful Lepcha village in Karseong.It is very close to Latpanchor and Namthing.As it is one of the most untouched destination of Darjeeling Himalayan Foothills so its covered by lush green forests.Very few homestays have grown up in this area.Every Sittong village is a garden and every garden has orange trees.Every where  your eye goes there are tea gardens welcoming you to stay for a couple of days or more.There are not much to see from this place.You can visit to Ahaldara or just trek through the jungles and feel the silence and soothe your eyes by seeing the beautiful nature.

Accomodation-There are quite a  few homestays in Sittong.There are no direct staying options in Ghayaltar.

1)Chhlamkyong Homestay-08945729034
2)Humro Homestay-18001233759

Conclusion-So these are the five reclusive places of North Bengal.Hope you have gone through every details and try to keep these places on your trip when you visit North Bengal.
.


Tuesday, June 16, 2020

Ten Offbeat Destinations of Himachal Pradesh




Himacha Pradesh Offbeat Places || In 2020,we are forced to stay at home due to Corona virus and its a pathetic condition that we who love travelling are just staying at home and cant able to explore.I also had planned many destinations in 2020 but all are in vein.Its been long that I hadn't travel to the beaches,mountains or forests.But travelling cant be stopped what I think.Bacause though we are not able to visit places physically but we can visualise with our inner eyes and can reach anywhere we like.
  
Now a days I am just sitting in front of my laptop and remembering the places which I visited by seeing the pictures and videos which I had shot.Today I am giving a detail information about ten offbeat destinations of Himachal Pradesh which very few of us know.


1) Renukaji- If you want to spend few days in peace and solitude then Renukaji is ideal for you. Its main attraction is Renuka Lake which is in the midst of beautiful green and snowcapped mountains. The waters of the lake are so clear like crystal that it seems God prevails there. This lake is the largest lake in Himachal. It is situated in Sirmaur district of Himachal. It’s well connected by roadways. This place is 672 m above sea level. A perfect blend of natural beauty and manmade marvels, Renukaji is worth to visit. In November a fair is organized for five days with the arrival of Parasuram, the son of Renuka, where lakhs of pilgrims visit from all over the country. But apart from that this place remains an offbeat place of Himachal.

How to Reach-HRTC bus departs every 1 hour from Kashmiri Gate,Delhi which will drop you to Renukaji.Renukaji can also be reached from Chandigarh via flight.From Chandigarh to Nahan via bus or cab.From Delhi to Ambala Cantonment station.From Ambala to Nahan via cab.

What to See-Renuka Lake,Suketi Fossile Park,Jaitak Fort,Churdhar Peak,Dhaula Kaun.

Accomodation-1)HPTDC the Renuka(01702267339)

                          2)The Sirmour Retreat(09313002006)


2) Gada Guashaini-This is a place full of greeneries and small flowing rivers. This is a place where you can spend for hours alone just listening to chirping of birds and whirling of the waters. It will soothe your mind. You will feel that you don’t need anyone. The nature is with you. It is welcoming you with both hands. Gada Guashaini is a small village in Banjar Tehsil of Himachal. It is a part of Mandi district.

How to Reach-From Mandi,you have to take a bus or cab to Aut.Most of the buses reach Manali or Bhuntar via Aut.

What to See-It is very near to Tirthan Valley so you can visit Jalori Pass,Seruvalsar Lake and Chehni Kothi.

Accomodation-1)The Hidden Burrow,Jibhi(08885672665)

                          2)The Misty Wilds,Jibhi(07018185165)

                          3)Mudhouse Hostels(09459895806)


3) Tirthan Valley-If you want to get lost in the lap of nature, then Tirthan Valley will not make you dissatisfied. The peace that prevails here will make you to be there every year. Surrounded by Great Himalayan National Park this beautiful valley is just beside Tirthan River. Best time to visit Tirthan Valley is in spring and summer.This place is located in Kullu district of Himachal Pradesh.

How to Reach-From Delhi,the best way to reach Tirth is by road.Otherwise you can avail train or flight.The nearest station is Ambala or Kiratpur.From there catch a bus or cab.The nearest airport is Bhuntar.

What to see-Jalori viewpoint,Serolsar Lake,Great Himalayan National Park.

Accomodation-1)Khem Bharati Homestay(9459101113,9418442313)

                         2)Basera Cottages(7011797439,9039951575)

                         3)Great Himalayan National Park

                            website-www.greathimalayannationalpark.org


4)Pabbar Valley-It is located just 80kms from Simla.The valley is located in the belt famous for Pabbar river that’s cuts through the Chanshal Mountain range.You can enjoy rich flaura and Fauna,snow-clad mountains,awesome nature,rivers,ancient temples etc.

How to Reach-There are a lot of easy communication to reach Simla.From Simla you have to reach Rohru,the nearest town to the valley.The nearest railway station from Rohru is Kalka.

What to see-The nearest places to visit from Pabbar are Kufri,Jubbal,Hatkoi,Chanshal,Theog,Kotkhai and many more.

Accomodation-1)Chanshal Hotel(01781240661)

                         2)Narkanda Cottages,Rohru(09501221122)


5)Thanedar-Located near to Simla.Its a 3 hour drive from Simla.Thanedar, at 7,300 ft, is still a small, one-street place with a few shops and government buildings surrounded by orchards.In April,the whole Sutlet valley is covered with apples and strawberries.Its a beautiful experience worthy to visit.In May-June,you can get rid of both the heat as well as the crowds of hill stations.

How to Reach-You have to reach Kalka by flight or train,then to Simla by toy train.From Simla book a cab to reach Thanedar.

What to see-Tani Jubbar Lake,Arya Samaj Mandir.

Accomodation-1)Banjara Orchard Retreat(-09816747541)

                         2)Hotel Hilltop,Simla(01772657383)

                        3)Hotel Sunrise(01772802531)


6)Shoja-Located in Seraj valley,links the Simla and Kullu districts.Shoja is a place very few of us known.Its a serene secluded place of Himachal.If you want to spend some days  or some hours in solitude thenm this place will not dissatify you.Best months to vosit are from April-June and September -October.In summer you can feel the beauty of nature.The snow-clad mountains,the green valleys will welcome youyu and if you visit in winter the white carpet of snow will take you into its arms and makes you feel on top of the world.

How to Reach-Nearest airport is Bhutar,nearest railway station is Chandigarh. Shoja is accessed by the Chandigarh-Manali NH21. Drive upto Chandigarh via Ambala. From there, follow NH21 to Aut via Mandi.From Aut, it’s a 35-km drive to Gushaini via Larji and Banjar.

 What to See-For the places to visit near to Shoja,Jalori Pass,Waterfall Point and Tirthan Valley are worthy to visit.

Accomodation-1)The Hidden Burrow,Jibhi(08885672665)

                          2)The Misty Wilds,Jibhi(07018185165)

                          3)Mudhouse Hostels(09459895806)


7)Barot-Located 40kms from Jogindernagar and 65kms from Mandi.Barot is a mesmerizingly beautiful village located in the serene valleys of Mandi District in the north Indian state of Himachal Pradesh.The location is famous for its numerous trekking trails passing through the village and hence is a preferred trekking destination too.

How to Reach-There are two ways to reach Barot.One via Mandi and other via Jogindernagar.At Mandi Bus Stand, locals will tell to get into any Baijnath/Kangra bound bus to reach Ghatasni.From there board the bus which runs from Baijnath to Barot.

What to See-Uhi River,Barot Temple,Nargu Wildlife Sanctuary,Chuhar Valley,Shanan Hydel Project.

Accomodation-1)Wild High Cottages(-09876069504)

                          2)Zostel Barot(02248966122)

                          3)Hotel Barot Valley(08860901475)


8)Kheerganga-Located in Kullu district in Parvati Valley.This place is ideal for adventurous trekking and hot springs.Its still an unexplored destination and is the most gorgeous spot in HP.Starting point of this trek is Barshaini.

How to Reach-First you have to reach Kasol,a popular place in HP.There are a lot of local transport and private cabs to reach Barshaini.Barshaini is just 22kms from Kasol.

What to See-Parvati Valley,Kheerganga Waterfall.

Accomodation-There are no accomodation in Kheerganga.You have to stay in Kasol.

 1)Hotel Rainbow Inn(09816210302)

2)River Edge Hotel(09805371353)


9)Prashar Lake-Located 49kms north of Mandi.Its one of Himachal's most serene and secluded destinations.The lake has unexplained depthness and the surrounding beauty will force you to visit again and again.The sage Prashar used to medicate there so its name is Prashar Lake.Bhima,one of Pandava brothers created this lake.

How to Reach-You have to reach Baggi village in Mandi district.Mandi is just 50kms from Prashar.

What to See-Apart from Prashar lake you can also see Pandoh Lake,Jalori Pass,Rewalsar Lake.

Accomodation-1)Hotel Valley View,Mandi(01905242319)

                        2)Hotel Sangam,Bhuntar(01902268366)


10)Kandaghat-Located in the Solan district which is on the Kalka-Simla.National Highway no 22.Located in stone throwing distance from major cities of Himachghal,Kandaghat is still an unexplored destination.It offers great views of snow-capped mountains and green valleys.

How to Reach-Kandaghat can be reached en route of the famous tourist destination Chail.It is eqidistantant from both Chail and Simla both are just 30kms away from Kandaghat.

What to See-Karol Tibba Hindu Temple,Tiger Hill,Mohan Shakti National Heritage Park.

Accomodation-1)Hotel Aashish Inn(-09816194627)

                          2)Hotel Falcon Crest,Simla(01243986389)

                          3)Hotel Andaz,Simla(08130270859)


So,these are ten unexplored places of Himachal very few tourists visit stii now.Please do include in you list of travel places beacuse if you dont visit you will really miss something.

plz follow me on instagram-debasree_nandi_photography.

My youtube channel-UCyL8JTaAAPwdcuHV2I5JyDQ


  

                         









Saturday, May 16, 2020

কোলকাতার ঐতিহ্য—ভিক্টোরিয়া |


 ইংরেজরা কোলকাতার বুকে ২০০ বছর রাজত্বকালে কত না স্বাধীনতা সংগ্রামী দের ওপর অত্যাচার করেছে কত প্রাণ বলিদান গেছে এ রা কোলকাতার বুকে ২০০ বছর রাজত্বকালে কত না স্বাধীনতা সংগ্রামী দের ওপর অত্যাচার করেছে কত প্রাণ বলিদান গেছে এই ইংরেজ শাসকদের জন্যে কিন্তু এটাও ঠিক যে এই ইংরেজরা আমাদের শহরের বুকে এমন সব গির্জা বা স্মৃতি শৈল স্থাপন করেছেন যেগুলো এখনো সেই একই সম্মান নিয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে তাদের এত বছরেও সেই জৌলুস কিছুটা ঘাটতি হলেও তারা কিন্তু তাদের ঐতিহ্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে


ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলো এমন এক অতীব সুন্দর নিদর্শন যা বার বার দর্শন করলেও মন ভরে না সারা বছর বাঙালী সহ সারা বিশ্বেরকোটি কোটি পর্যটকেরা আসেন এই শৈল স্মৃতি দেখতে বিশেষত লণ্ডনে প্রচুর পর্যটকরা ভিড় জমায় ভিক্টোরিয়া সংগ্ৰহ শালা দেখতে কারণ এখানের সংগ্ৰহ শালা য় এমন সব দুষ্প্রাপ্য জিনিস রাখা আছে যেটা লণ্ডনে সংগ্ৰহ শালা য় নেই তার মধ্যে একটি হলো রাণী ভিক্টোরিয়ার ব্যবহার করা পিয়ানো যেটা তাঁর বর প্রিন্স এলবার্ট তাঁকে উপহার দিয়েছিলেন সেটা একমাত্র কোলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল রাখা আছে এই ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রবেশ করলেই সামনে ডান দিকে দেখা যাবে রাজা জর্জ সিক্স এবং বাঁ দিকে মাদার মেরীর মূর্তি নাক বরাবর গেলে পড়বে বিশাল সেন্ট্রাল হল যেখানে রয়েছে সাদা পাথর বা হোয়াইট স্টোনে নির্মিত রাণী ভিক্টোরিয়ার মূর্তি তার তলায় রয়েছে দুটো তারিখ যেটা তার রাজত্বকাল বোঝাচ্ছে উনি ১৮০৭-১৯০১ সাল অবধি রাজত্ব করেছিলেন এই রাণীর রাজত্বকালে স্মৃতির উদ্দেশ্যে এই স্মৃতি শৈল তৈরী করা হয়েছে ১৯০১ সালের জানুয়ারি মাসে রাণীর মৃত্যু হয় ১৯০৬ সালে এই ভিক্টোরিয়া তৈরী করা শুরু হয় জর্জ সিক্স প্রথম ভিত তা স্থাপন করেন এবং উলিয়মস এডিসন নামক একজন ইংরেজ যিনি তাজ মহলের বড় ভক্ত ছিলেন তিনি সেই তাজ মহলের আদলে তৈরী করলেন ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি যেটি হিন্দু, মুসলিম এবং ইউরোপিয়ান আর্টের কিছু বৈশিষ্ট্যের সংমিশ্রণ হিসেবে তৈরী করা হয় এই মডেলটি ভিক্টোরিয়া ভেতরে সযত্নে সংরক্ষিত আছে ১৯২১ সালে এটি সাধারণ মানুষের জন্যে খুলে দেওয়া হয়



ভিক্টোরিয়া ভেতরে ঢুকলেই প্রথম ডান হাতে পড়বে রোয়াল্ড গ্যালারি যেখানে রয়েছে বিশাল বিশাল তৈলচিত্র যেগুলো এত নিখুতভাবে আঁকা হয়েছে যে এখনকার দিনে বড় বড় শিল্পীদের আঁকতে কঠিন লাগবে যতগুলো তৈলচিত্র ওখানে সুরক্ষিত আছে সব গুলোই প্রাকৃতিক রঙ দিয়ে করা কারণ তখনকার দিনে কৃত্রিম রঙ ছিল না এগুলো সব থমাস উইলিয়াম ডেনিয়াল নামক দুই ইংরেজদের তৈরী রয়াল গ্যালারি ঠিক উল্টোদিকে রয়েছে চিত্র গ্যালারি যেখানে তৈলচিত্রের সাথে সাথে দেখতে পাওয়া যায় কিছু জলরঙের চিত্র গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর অবনিন্দ্র নাথ ঠাকুরের তৈরী কিছু জলরঙের চিত্রচিত্র যেগুলো আপনাকে মুগ্ধ করবে এছাড়াও তখনকার দিনের তিনজন গভর্নর জেনারেলের মূর্তি দেখতে পাওয়া যায় এই গ্যালারি তে মার্কস হেস্টিংস, মার্কস ডালহৌসি মার্কস ওলেসলি যাদের নামে কোলকাতায় রাস্তা আছে এই দুটি গ্যালারির সাথে সাথে রয়েছে আরো দুটো গ্যালারি নাম কোলকাতা গ্যালারি দরবার হল যেগুলো সেন্ট্রাল হল পেরোলেই চোখে পড়বে প্রথম বাঁ দিকে আছে দরবার হল যেখানে রাখা আছে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি আর আছে মোঘল সম্রাট সাহ আলমের কিছু তৈলচিত্র, আউদের নবাব সুজাউদ্দৌলা কিছু তৈলচিত্র, দিল্লির জুমা মসজিদ, সুলতানগঞ্জের ফকির রকের চিত্র, বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার তথা নাজিবের নবাব যেই সিংহাসনে বসতেন সেটিও সযত্নে রাখা আছে এই দরবার হলে সত্যিই, বাংলা ভারতের ইতিহাসের কত কি নিদর্শন সংরক্ষিত আছে এই স্মৃতি শৈলের অন্দরে সেটা না দেখলে বোঝানো মুশকিল এই সংগ্ৰহ শালা সত্যি দেখার মত দরবার হলের ঠিক উল্টোদিকে হলো কোলকাতা গ্যালারি যেখানে রয়েছে বাংলার সব বিখ্যাত মানুষের ছবি, তাদের নিজেদের হাতে লেখা অনেক তথ্য, তাদের জীবন, রয়েছে বাংলা প্রথম হোমিওপ্যাথি ডাক্তারের মূর্তি, ডাক্তার রাজেন্দ্রলাল দত্তযাঁকে কোলকাতার ফাদার ওফ হোমিওপ্যাথি বলা হয়ে থাকে তাছাড়াও রয়েছে হাতির দাঁতের তৈরি চেয়ার যেটি মীর জাফারের স্ত্রী মুন্নী বেগম উপহার দিয়েছিলেন হেস্টিংসের স্ত্রীকে রয়েছে ১৮৯১ সালের কাঁথা যেটার ওপর সুতোর কাজ এত নিঁখুত যে এখনকার দিনে মেশিনে করলেও এত ভাল করে করতে পারবে না এছাড়াও আছে সত্যেন্দ্র প্রসন্ন সিনহার পরিহিত কোট যার মধ্যে রয়েছে সোনার অসম্ভব সুন্দর কাজ এই সংগ্ৰহ শালা দেখতে দেখতে সারাদিন কাটানো যায়


ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সেন্ট্রাল হলে রাণীর মূর্তি তো আছেই তার সাথে ওপরে তাকালে দেখতে পাবেন অনেক ছবি রাণীর শৈশব কাল, তাঁর সাথে প্রিন্স এলবার্টের বিবাহ, রাজকীয় পরিবারের জীবনযাপন, এডওয়ার্ড সিক্স এবং প্রিন্সেস আলেকজান্ডারের বিবাহ এসবের ছবিতে বলা আছে ভিক্টোরিয়ার সংগ্ৰহশালায় যেসব তৈলচিত্র টাঙানো আছে সেগুলো সব ১৭৭০ থেকে ১৮৩৫ এর মধ্যে তৈরী হয়েছে ভু দৃশ্য শহরের দৃশ্যের যে চিত্র গুলো আছে ওগুলো সরকার উলিয়াম থমাস ডেনিয়েলের তৈরী প্রতি কৃতি, পোট্রেট এবং ঐতিহাসিক দৃশ্যে যে চিত্র গুলো সব টিটি কেটেল নামক এক ইংরেজের তৈরী এই শৈল স্মৃতি বাইরে যে সবুজে ঘেরা বাগান আছে সেটা প্রায় ৬৪ একর জমির ওপর করা হয়েছে ২১টি মালি এই বাগানগুলোর পরিচর্যা করে রিডেলসল ডেভিড নামক দুই ইংরেজ এই বা বাগানগুলোর নকসা করেছেন এই বাগানের চারিধারে কিছু মূর্তি দেখতে পাওয়া যাবে যেগুলো হল চার্লস কর্ন ওয়ালিস, জেমস ব্রাউন রামসে, আর্থার ওয়েলেসলি


ভিক্টোরিয়া বাইরে টাও যেমন সুন্দর ভেতরের সংগ্ৰহ শালা ততধিক আকর্ষণীয় তাই আমাদের সবার দ্বায়িত্ব এই স্মৃতি শৈলকে সারাজীবন এভাবেই সুন্দরভাবে কোলকাতার ঐতিহ্য হিসেবে ধরে রাখতেইংরেজরা কোলকাতার বুকে ২০০ বছর রাজত্বকালে কত না স্বাধীনতা সংগ্রামী দের ওপর অত্যাচার করেছে কত প্রাণ বলিদান গেছে এই ইংরেজ শাসকদের জন্যে কিন্তু এটাও ঠিক যে এই ইংরেজরা আমাদের শহরের বুকে এমন সব গির্জা বা স্মৃতি শৈল স্থাপন করেছেন যেগুলো এখনো সেই একই সম্মান নিয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে তাদের এত বছরেও সেই জৌলুস কিছুটা ঘাটতি হলেও তারা কিন্তু তাদের ঐতিহ্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলো এমন এক অতীব সুন্দর নিদর্শন যা বার বার দর্শন করলেও মন ভরে না সারা বছর বাঙালী সহ সারা বিশ্বেরকোটি কোটি পর্যটকেরা আসেন এই শৈল স্মৃতি দেখতে বিশেষত লণ্ডনে প্রচুর পর্যটকরা ভিড় জমায় ভিক্টোরিয়া সংগ্ৰহ শালা দেখতে কারণ এখানের সংগ্ৰহ শালা য় এমন সব দুষ্প্রাপ্য জিনিস রাখা আছে যেটা লণ্ডনে সংগ্ৰহ শালা য় নেই তার মধ্যে একটি হলো রাণী ভিক্টোরিয়ার ব্যবহার করা পিয়ানো যেটা তাঁর বর প্রিন্স এলবার্ট তাঁকে উপহার দিয়েছিলেন সেটা একমাত্র কোলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল রাখা আছে এই ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রবেশ করলেই সামনে ডান দিকে দেখা যাবে রাজা জর্জ সিক্স এবং বাঁ দিকে মাদার মেরীর মূর্তি নাক বরাবর গেলে পড়বে বিশাল সেন্ট্রাল হল যেখানে রয়েছে সাদা পাথর বা হোয়াইট স্টোনে নির্মিত রাণী ভিক্টোরিয়ার মূর্তি তার তলায় রয়েছে দুটো তারিখ যেটা তার রাজত্বকাল বোঝাচ্ছে উনি ১৮০৭-১৯০১ সাল অবধি রাজত্ব করেছিলেন এই রাণীর রাজত্বকালে স্মৃতির উদ্দেশ্যে এই স্মৃতি শৈল তৈরী করা হয়েছে ১৯০১ সালের জানুয়ারি মাসে রাণীর মৃত্যু হয় ১৯০৬ সালে এই ভিক্টোরিয়া তৈরী করা শুরু হয় জর্জ সিক্স প্রথম ভিত তা স্থাপন করেন এবং উলিয়মস এডিসন নামক একজন ইংরেজ যিনি তাজ মহলের বড় ভক্ত ছিলেন তিনি সেই তাজ মহলের আদলে তৈরী করলেন ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি যেটি হিন্দু, মুসলিম এবং ইউরোপিয়ান আর্টের কিছু বৈশিষ্ট্যের সংমিশ্রণ হিসেবে তৈরী করা হয় এই মডেলটি ভিক্টোরিয়া ভেতরে সযত্নে সংরক্ষিত আছে ১৯২১ সালে এটি সাধারণ মানুষের জন্যে খুলে দেওয়া হয়


ভিক্টোরিয়া ভেতরে ঢুকলেই প্রথম ডান হাতে পড়বে রোয়াল্ড গ্যালারি যেখানে রয়েছে বিশাল বিশাল তৈলচিত্র যেগুলো এত নিখুতভাবে আঁকা হয়েছে যে এখনকার দিনে বড় বড় শিল্পীদের আঁকতে কঠিন লাগবে যতগুলো তৈলচিত্র ওখানে সুরক্ষিত আছে সব গুলোই প্রাকৃতিক রঙ দিয়ে করা কারণ তখনকার দিনে কৃত্রিম রঙ ছিল না এগুলো সব থমাস উইলিয়াম ডেনিয়াল নামক দুই ইংরেজদের তৈরী রয়াল গ্যালারি ঠিক উল্টোদিকে রয়েছে চিত্র গ্যালারি যেখানে তৈলচিত্রের সাথে সাথে দেখতে পাওয়া যায় কিছু জলরঙের চিত্র গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর অবনিন্দ্র নাথ ঠাকুরের তৈরী কিছু জলরঙের চিত্রচিত্র যেগুলো আপনাকে মুগ্ধ করবে এছাড়াও তখনকার দিনের তিনজন গভর্নর জেনারেলের মূর্তি দেখতে পাওয়া যায় এই গ্যালারি তে মার্কস হেস্টিংস, মার্কস ডালহৌসি মার্কস ওলেসলি যাদের নামে কোলকাতায় রাস্তা আছে এই দুটি গ্যালারির সাথে সাথে রয়েছে আরো দুটো গ্যালারি নাম কোলকাতা গ্যালারি দরবার হল যেগুলো সেন্ট্রাল হল পেরোলেই চোখে পড়বে প্রথম বাঁ দিকে আছে দরবার হল যেখানে রাখা আছে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি আর আছে মোঘল সম্রাট সাহ আলমের কিছু তৈলচিত্র, আউদের নবাব সুজাউদ্দৌলা কিছু তৈলচিত্র, দিল্লির জুমা মসজিদ, সুলতানগঞ্জের ফকির রকের চিত্র, বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার তথা নাজিবের নবাব যেই সিংহাসনে বসতেন সেটিও সযত্নে রাখা আছে এই দরবার হলে সত্যিই, বাংলা ভারতের ইতিহাসের কত কি নিদর্শন সংরক্ষিত আছে এই স্মৃতি শৈলের অন্দরে সেটা না দেখলে বোঝানো মুশকিল এই সংগ্ৰহ শালা সত্যি দেখার মত দরবার হলের ঠিক উল্টোদিকে হলো কোলকাতা গ্যালারি যেখানে রয়েছে বাংলার সব বিখ্যাত মানুষের ছবি, তাদের নিজেদের হাতে লেখা অনেক তথ্য, তাদের জীবন, রয়েছে বাংলা প্রথম হোমিওপ্যাথি ডাক্তারের মূর্তি, ডাক্তার রাজেন্দ্রলাল দত্ত যাঁকে কোলকাতার ফাদার ওফ হোমিওপ্যাথি বলা হয়ে থাকে তাছাড়াও রয়েছে হাতির দাঁতের তৈরি চেয়ার যেটি মীর জাফারের স্ত্রী মুন্নী বেগম উপহার দিয়েছিলেন হেস্টিংসের স্ত্রীকে রয়েছে ১৮৯১ সালের কাঁথা যেটার ওপর সুতোর কাজ এত নিঁখুত যে এখনকার দিনে মেশিনে করলেও এত ভাল করে করতে পারবে না এছাড়াও আছে সত্যেন্দ্র প্রসন্ন সিনহার পরিহিত কোট যার মধ্যে রয়েছে সোনার অসম্ভব সুন্দর কাজ এই সংগ্ৰহ শালা দেখতে দেখতে সারাদিন কাটানো যায়


ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সেন্ট্রাল হলে রাণীর মূর্তি তো আছেই তার সাথে ওপরে তাকালে দেখতে পাবেন অনেক ছবি রাণীর শৈশব কাল, তাঁর সাথে প্রিন্স এলবার্টের বিবাহ, রাজকীয় পরিবারের জীবনযাপন, এডওয়ার্ড সিক্স এবং প্রিন্সেস আলেকজান্ডারের বিবাহ এসবের ছবিতে বলা আছে ভিক্টোরিয়ার সংগ্ৰহশালায় যেসব তৈলচিত্র টাঙানো আছে সেগুলো সব ১৭৭০ থেকে ১৮৩৫ এর মধ্যে তৈরী হয়েছে ভু দৃশ্য শহরের দৃশ্যের যে চিত্র গুলো আছে ওগুলো সরকার উলিয়াম থমাস ডেনিয়েলের তৈরী প্রতি কৃতি, পোট্রেট এবং ঐতিহাসিক দৃশ্যে যে চিত্র গুলো সব টিটি কেটেল নামক এক ইংরেজের তৈরী এই শৈল স্মৃতি বাইরে যে সবুজে ঘেরা বাগান আছে সেটা প্রায় ৬৪ একর জমির ওপর করা হয়েছে ২১টি মালি এই বাগানগুলোর পরিচর্যা করে রিডেলসল ডেভিড নামক দুই ইংরেজ এই বা বাগানগুলোর নকসা করেছেন এই বাগানের চারিধারে কিছু মূর্তি দেখতে পাওয়া যাবে যেগুলো হল চার্লস কর্ন ওয়ালিস, জেমস ব্রাউন রামসে, আর্থার ওয়েলেসলি


ভিক্টোরিয়া বাইরে টাও যেমন সুন্দর ভেতরের সংগ্ৰহ শালা ততধিক আকর্ষণীয় তাই আমাদের সবার দ্বায়িত্ব এই স্মৃতি শৈলকে সারাজীবন এভাবেই সুন্দরভাবে কোলকাতার ঐতিহ্য হিসেবে ধরে রাখতেইংরেজরা কোলকাতার বুকে ২০০ বছর রাজত্বকালে কত না স্বাধীনতা সংগ্রামী দের ওপর অত্যাচার করেছে কত প্রাণ বলিদান গেছে এই ইংরেজ শাসকদের জন্যে কিন্তু এটাও ঠিক যে এই ইংরেজরা আমাদের শহরের বুকে এমন সব গির্জা বা স্মৃতি শৈল স্থাপন করেছেন যেগুলো এখনো সেই একই সম্মান নিয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে তাদের এত বছরেও সেই জৌলুস কিছুটা ঘাটতি হলেও তারা কিন্তু তাদের ঐতিহ্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলো এমন এক অতীব সুন্দর নিদর্শন যা বার বার দর্শন করলেও মন ভরে না সারা বছর বাঙালী সহ সারা বিশ্বেরকোটি কোটি পর্যটকেরা আসেন এই শৈল স্মৃতি দেখতে বিশেষত লণ্ডনে প্রচুর পর্যটকরা ভিড় জমায় ভিক্টোরিয়া সংগ্ৰহ শালা দেখতে কারণ এখানের সংগ্ৰহ শালা য় এমন সব দুষ্প্রাপ্য জিনিস রাখা আছে যেটা লণ্ডনে সংগ্ৰহ শালা য় নেই তার মধ্যে একটি হলো রাণী ভিক্টোরিয়ার ব্যবহার করা পিয়ানো যেটা তাঁর বর প্রিন্স এলবার্ট তাঁকে উপহার দিয়েছিলেন সেটা একমাত্র কোলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল রাখা আছে এই ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রবেশ করলেই সামনে ডান দিকে দেখা যাবে রাজা জর্জ সিক্স এবং বাঁ দিকে মাদার মেরীর মূর্তি নাক বরাবর গেলে পড়বে বিশাল সেন্ট্রাল হল যেখানে রয়েছে সাদা পাথর বা হোয়াইট স্টোনে নির্মিত রাণী ভিক্টোরিয়ার মূর্তি তার তলায় রয়েছে দুটো তারিখ যেটা তার রাজত্বকাল বোঝাচ্ছে উনি ১৮০৭-১৯০১ সাল অবধি রাজত্ব করেছিলেন এই রাণীর রাজত্বকালে স্মৃতির উদ্দেশ্যে এই স্মৃতি শৈল তৈরী করা হয়েছে ১৯০১ সালের জানুয়ারি মাসে রাণীর মৃত্যু হয় ১৯০৬ সালে এই ভিক্টোরিয়া তৈরী করা শুরু হয় জর্জ সিক্স প্রথম ভিত তা স্থাপন করেন এবং উলিয়মস এডিসন নামক একজন ইংরেজ যিনি তাজ মহলের বড় ভক্ত ছিলেন তিনি সেই তাজ মহলের আদলে তৈরী করলেন ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি যেটি হিন্দু, মুসলিম এবং ইউরোপিয়ান আর্টের কিছু বৈশিষ্ট্যের সংমিশ্রণ হিসেবে তৈরী করা হয় এই মডেলটি ভিক্টোরিয়া ভেতরে সযত্নে সংরক্ষিত আছে ১৯২১ সালে এটি সাধারণ মানুষের জন্যে খুলে দেওয়া হয়


ভিক্টোরিয়া ভেতরে ঢুকলেই প্রথম ডান হাতে পড়বে রোয়াল্ড গ্যালারি যেখানে রয়েছে বিশাল বিশাল তৈলচিত্র যেগুলো এত নিখুতভাবে আঁকা হয়েছে যে এখনকার দিনে বড় বড় শিল্পীদের আঁকতে কঠিন লাগবে যতগুলো তৈলচিত্র ওখানে সুরক্ষিত আছে সব গুলোই প্রাকৃতিক রঙ দিয়ে করা কারণ তখনকার দিনে কৃত্রিম রঙ ছিল না এগুলো সব থমাস উইলিয়াম ডেনিয়াল নামক দুই ইংরেজদের তৈরী রয়াল গ্যালারি ঠিক উল্টোদিকে রয়েছে চিত্র গ্যালারি যেখানে তৈলচিত্রের সাথে সাথে দেখতে পাওয়া যায় কিছু জলরঙের চিত্র গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর অবনিন্দ্র নাথ ঠাকুরের তৈরী কিছু জলরঙের চিত্রচিত্র যেগুলো আপনাকে মুগ্ধ করবে এছাড়াও তখনকার দিনের তিনজন গভর্নর জেনারেলের মূর্তি দেখতে পাওয়া যায় এই গ্যালারি তে মার্কস হেস্টিংস, মার্কস ডালহৌসি মার্কস ওলেসলি যাদের নামে কোলকাতায় রাস্তা আছে এই দুটি গ্যালারির সাথে সাথে রয়েছে আরো দুটো গ্যালারি নাম কোলকাতা গ্যালারি দরবার হল যেগুলো সেন্ট্রাল হল পেরোলেই চোখে পড়বে প্রথম বাঁ দিকে আছে দরবার হল যেখানে রাখা আছে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মডেলটি আর আছে মোঘল সম্রাট সাহ আলমের কিছু তৈলচিত্র, আউদের নবাব সুজাউদ্দৌলা কিছু তৈলচিত্র, দিল্লির জুমা মসজিদ, সুলতানগঞ্জের ফকির রকের চিত্র, বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার তথা নাজিবের নবাব যেই সিংহাসনে বসতেন সেটিও সযত্নে রাখা আছে এই দরবার হলে সত্যিই, বাংলা ভারতের ইতিহাসের কত কি নিদর্শন সংরক্ষিত আছে এই স্মৃতি শৈলের অন্দরে সেটা না দেখলে বোঝানো মুশকিল এই সংগ্ৰহ শালা সত্যি দেখার মত দরবার হলের ঠিক উল্টোদিকে হলো কোলকাতা গ্যালারি যেখানে রয়েছে বাংলার সব বিখ্যাত মানুষের ছবি, তাদের নিজেদের হাতে লেখা অনেক তথ্য, তাদের জীবন, রয়েছে বাংলা প্রথম হোমিওপ্যাথি ডাক্তারের মূর্তি, ডাক্তার রাজেন্দ্রলাল দত্ত যাঁকে কোলকাতার ফাদার ওফ হোমিওপ্যাথি বলা হয়ে থাকে তাছাড়াও রয়েছে হাতির দাঁতের তৈরি চেয়ার যেটি মীর জাফারের স্ত্রী মুন্নী বেগম উপহার দিয়েছিলেন হেস্টিংসের স্ত্রীকে রয়েছে ১৮৯১ সালের কাঁথা যেটার ওপর সুতোর কাজ এত নিঁখুত যে এখনকার দিনে মেশিনে করলেও এত ভাল করে করতে পারবে না এছাড়াও আছে সত্যেন্দ্র প্রসন্ন সিনহার পরিহিত কোট যার মধ্যে রয়েছে সোনার অসম্ভব সুন্দর কাজ এই সংগ্ৰহ শালা দেখতে দেখতে সারাদিন কাটানো যায়


ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সেন্ট্রাল হলে রাণীর মূর্তি তো আছেই তার সাথে ওপরে তাকালে দেখতে পাবেন অনেক ছবি রাণীর শৈশব কাল, তাঁর সাথে প্রিন্স এলবার্টের বিবাহ, রাজকীয় পরিবারের জীবনযাপন, এডওয়ার্ড সিক্স এবং প্রিন্সেস আলেকজান্ডারের বিবাহ এসবের ছবিতে বলা আছে ভিক্টোরিয়ার সংগ্ৰহশালায় যেসব তৈলচিত্র টাঙানো আছে সেগুলো সব ১৭৭০ থেকে ১৮৩৫ এর মধ্যে তৈরী হয়েছে ভু দৃশ্য শহরের দৃশ্যের যে চিত্র গুলো আছে ওগুলো সরকার উলিয়াম থমাস ডেনিয়েলের তৈরী প্রতি কৃতি, পোট্রেট এবং ঐতিহাসিক দৃশ্যে যে চিত্র গুলো সব টিটি কেটেল নামক এক ইংরেজের তৈরী এই শৈল স্মৃতি বাইরে যে সবুজে ঘেরা বাগান আছে সেটা প্রায় ৬৪ একর জমির ওপর করা হয়েছে ২১টি মালি এই বাগানগুলোর পরিচর্যা করে রিডেলসল ডেভিড নামক দুই ইংরেজ এই বা বাগানগুলোর নকসা করেছেন এই বাগানের চারিধারে কিছু মূর্তি দেখতে পাওয়া যাবে যেগুলো হল চার্লস কর্ন ওয়ালিস, জেমস ব্রাউন রামসে, আর্থার ওয়েলেসলি


ভিক্টোরিয়া বাইরে টাও যেমন সুন্দর ভেতরের সংগ্ৰহ শালা ততধিক আকর্ষণীয় তাই আমাদের সবার দ্বায়িত্ব এই স্মৃতি শৈলকে সারাজীবন এভাবেই সুন্দরভাবে কোলকাতার ঐতিহ্য হিসেবে ধরে রাখতে